সৌদি আরবে হঠাৎ কেন এতো পরিবর্তন



সৌদি আরবে গত কয়েক দশকে ধীর গতিতে সামান্য কিছু পরিবর্তন ঘটলেও দেশটি এখন নাটকীয় কিছু ঘটনা প্রবাহের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে।

আধুনিকায়ন, নারীদের অধিকার এবং ইরানের বিরুদ্ধে দল পাকানো- এর সবই আছে দেশটির কার্য তালিকায়।

আর এসব কিছুর কেন্দ্রে আছেন একজন ব্যক্তি- নতুন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।
তার নেতৃত্বে চলছে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান। সমালোচকদের অনেকে বলছেন, নিজের ক্ষমতা আরো কুক্ষিগত করতে বিরোধীদের তিনি নির্মূল করার চেষ্টা করছেন এই অভিযানের মাধ্যমে।

দেশের ভেতরে তো বটেই, যুবরাজ বিন সালমান এখন চেষ্টা করছেন নিজেকে আরব বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে- হঠাৎ করে এখন কেন তেল সমৃদ্ধ এই দেশটিতে এতো কিছু ঘটতে শুরু করেছে? সৌদি আরবের নাগরিকরাও গভীর আগ্রহের সঙ্গে এসব পরিবর্তনের দিকে লক্ষ্য রাখছেন। নজর রাখছেন মধ্যপ্রাচ্যসহ সারাবিশ্বের রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরাও।

পরিবর্তনের হাওয়া গত কয়েকদিনে নাটকীয় কিছু ঘটনা ঘটে গেলো সৌদি আরবে। এসব কারো কল্পনাতেও ছিলো না। যেমন বিলাস বহুল হোটেল রাতারাতি পরিণত হলো কারাগারে। আর ধনকুবের রাজকুমাররা হয়ে গেলো কারাবন্দী।

ফলে দেশটিতে বাড়তে লাগলো উত্তেজনা, দেশটি জড়িয়ে পড়ছে প্রক্সি যুদ্ধে এবং এতো দ্রুত একের পর এক এসব ঘটনা ঘটে চলেছে যে এসব খবরাখবরের সাথে তাল মিলিয়ে চলাও খুব কঠিন হয়ে পড়েছে।

সৌদি আরবে এতো পরিবর্তনের কারণ ও ধরন বুঝতে হলে এর সামান্য পেছনের কিছু ইতিহাসের দিকে ঘুরে তাকাতে হবে।

আজিজ আল সউদ ১৯০২ সাল থেকে প্রতিষ্ঠা করতে শুরু করেন তৃতীয় সৌদি রাজত্ব। ১৯৫৩ সালে তার মৃত্যুর আগে এই রাজত্ব তিনি সম্প্রসারিত করেন পারস্য উপসাগর থেকে লোহিত সাগর এবং ইরাক থেকে ইয়েমেন পর্যন্ত।

এই সৌদি বাদশাহর ছিলো কয়েক ডজন পুত্র সন্তান। তিনি চাইছিলেন ক্ষমতা একজনের হাত থেকে আরেকজনের হাতে ঘুরতে থাকবে। তখন তারা একেকজন একেক গোষ্ঠীর নেতা হয়ে উঠলেন।

তাদের ক্ষমতার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখারও ব্যবস্থা ছিলো তখন। একারণে বিভিন্ন বিষয়ে ক্ষমতা তাদের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়েছিলো।

এভাবেই চলে আসছিলো দশকের পর দশক। খুব ধীর গতিতে কিছু পরিবর্তনও ঘটছিলো। এসবের বেশিরভাগই ছিলো স্থিতিশীল এবং কি ঘটতে যাচ্ছে সেটা আগে থেকেই মোটামুটি অনুমান করা যেতো। অর্থাৎ নাটকীয় কিছু তেমন একটা ঘটতো না।

ক্ষমতার খেলা সৌদি আরবের এখনকার বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ। তার ভাইদের বেশিরভাগই ইতোমধ্যে মারা গেছেন।

ফলে বোঝাই যাচ্ছে যে রাজত্ব এখন পরবর্তী প্রজন্মের কাছে হস্তান্তরের সময় চলে এসেছে।

বাদশাহর ভাতিজা মোহাম্মদ বিন নায়েফ ২০১৫ সালে হলেন নতুন যুবরাজ।

ফলে এটা নিশ্চিত হয়ে যায় যে সিংহাসন আল-সউদ রাজ পরিবারের ভিন্ন শাখার দিকে প্রবাহিত হতে চলেছে।

অসুস্থ ও বয়োবৃদ্ধ বাদশাহ সালমান তখন তার উচ্চাকাঙ্ক্ষী পুত্রসন্তান সালমানকে তড়িঘড়ি করে ডেপুটি যুবরাজ হিসেবে ঘোষণা করেন।

এর দুবছরের মধ্যেই মোহাম্মদ বিন নায়েফকে উৎখাত করেন বাদশাহ সালমান।
এরপর সিংহাসনের উত্তরাধিকারী হয়ে উঠেন তারই ছেলে মোহাম্মদ বিন সালমান।

ফলে এই রাজ পরিবারে যেভাবে সিংহাসনের উত্তরাধিকারের পরিবর্তন হয়ে আসছিলো সেই প্রথা ভেঙে যায়। নতুন সৌদি আরবের প্রতিশ্রুতি এবং তারপরই বদলে যেতে শুরু করে সবকিছু। নতুন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান রাতারাতি তার প্রতিদ্বন্ধীদের আটক করে জেলে ভরতে শুরু করেন।

তাদের মধ্যে রয়েছেন অত্যন্ত বিত্তশালী ব্যবসায়ীরা। এমনকি ন্যাশনাল গার্ডের প্রধানও।

সব ক্ষমতা চলে আসলো এক ব্যক্তির হাতের মুঠোয় যা সৌদি রাজ-পরিবারে কখনো ছিলো না।

বিন সালমান ভাবছেন, সৌদি আরবকে এমন একটি দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে যা তেল ছাড়াও তার বর্তমান প্রভাব প্রতিপত্তি নিয়ে টিকে থাকতে পারবে।

তিনি আরো চাইলেন সৌদি আরবে নারীরা যাতে গাড়ি চালাতে পারে, এমনকি দাঁড়াতে পারে নির্বাচনেও। তিনি চাইলেন পররাষ্ট্রনীতিকে আরো শক্তিশালী করে তুলতে।

এভাবে তিনি নতুন এক সৌদি আরবের প্রতিশ্রুতি দিতে থাকলেন।

রূপকথার গল্পের মতো এখানেই কি এর একটি সুন্দর সমাপ্তি হতে পারে না?

না, পারে না। কারণ বাস্তব পরিস্থিতি আসলে সেরকম কিছু নয়।

যুবরাজ বিন সালমানের এতো সব উদ্যোগের পেছনে রয়েছে বড় ধরনের সব চ্যালেঞ্জ।

তার এই ক্ষমতার খেলা দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে শ্লথ করে দিতে পারে, ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে পড়তে পারেন বিনিয়োগকারীরাও।

মধ্যপ্রাচ্যকে ঘিরে তার যে নীতি সেখানেও রয়েছে সংঘাতের আশঙ্কা।

ইতোমধ্যেই সৌদি আরব বাগযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছে ইরানের সাথে। আর দেশটিতো ইতোমধ্যেই সরাসরি যুদ্ধ করছে ইয়েমেনে।

এই অবস্থা থেকে সৌদি আরব এখন কোন দিকে যেতে পারে এবং যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের এতোসব পরিকল্পনার পরিণতি কি হয় সেসব দেখার জন্যে হয়তো আরো কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে।

তবে নাটকীয় কিছু যে ঘটবে সেটা নিয়ে হয়তো কারো সন্দেহ নেই।


মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে সরকার: ফখরুল

ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই গুম-খুন করে মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে সরকার, অভিযোগ মির্জা ফখরুলের। রোববার সকালে,…


প্রযুক্তিতে দক্ষ জনবল তৈরি করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

শুধু রাজধানীকেন্দ্রিক নয়, তথ্য-প্রযুক্তির জ্ঞান তৃণমূলে ছড়িয়ে দিতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার, জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ…


টেস্টের নতুন অধিনায়ক সাকিব

মুশফিকুর রহিমকে সরিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়ক করা হয়েছে সাকিব আল হাসানকে। এছাড়া…


আদালতে খালেদা জিয়া: আইন ভঙ্গ করিনি, কোন অপরাধ করিনি

প্রধানমন্ত্রী থাকার সময় সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দ্বায়িত্ব পালন করেছে বলে দাবি করলেন, বেগম খালেদা…


অ্যাটর্নি জেনারেকে প্রাণনাশের হুমকি

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চিঠি দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে।…


গাজায় আবার ইসরাইলি বিমান-ট্যাংক হামলা

ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় শুক্রবার রাতে আবার ইহুদিবাদী ইসরাইলের সামরিক বাহিনী নতুন করে বিমান ও…


বিএনপিকে ক্ষমতার বাইরে রাখতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, দেশের উন্নয়নে ২০১৮ সালের নির্বাচনে খালেদা জিয়া ও বিএনপিকে ক্ষমতার…


প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বললো সোফিয়া

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সোস্যাল রোবট সোফিয়া প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনে যখন জানায় তাঁর নাতনীর নাম আর তার…


ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত ‘নরকের দ্বার খুলে দিবে’: হামাস

হোয়াইট হাউসে এক ভাষণে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বিতর্কিত জেরুসালেম শহরকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন। এই…


শেখ হাসিনাকে ‘বোন’ ডাকলেন হুন সেন

কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ‘বোন’ ডেকেছেন। পররাষ্ট্র সচিব এম শহিদুল হক বৈঠক…


রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে নমপেনের সহযোগিতা কামনা ঢাকার

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে দমন-পীড়নের কারণে সৃষ্ট রোহিঙ্গা সঙ্কটের টেকসই সমাধান নিশ্চিত করতে কম্বোডিয়ার সহযোগিতা চেয়েছেন…


সোহরাওয়ার্দীর সংগ্রামী জীবন ও আদর্শ প্রেরণা জোগায়: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হোসেন শহিদ সোহরাওয়ার্দীর স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেছেন, গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রা ও…