দশদিক মাসিক

হোম যে গ্রামের অর্ধেক মানুষই অন্ধ

যে গ্রামের অর্ধেক মানুষই অন্ধ


স্কুল অব কুইয়ো। ইথিওপিয়ার আরিওমা অঞ্চলের কেন্দ্রস্থলের এই গ্রামটি অন্ধত্বের অভিশাপে ভুগছে। শিশু ও বয়োবৃদ্ধের মধ্যেও রয়েছে অন্ধত্বের যন্ত্রণা। বর্তমানে গ্রামের অর্ধেক লোক অন্ধত্বের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন।
সম্প্রতি প্রকাশিত এক প্রতিবেদন এ তথ্য জানা গেছে।
চক্ষুরোগ বিশেষজ্ঞরা গ্রামের শিশুদের চোখ পরীক্ষা করে জানিয়েছেন, সেখানকার অর্ধেকের বেশি শিশুর চোখে ব্যাকটেরিয়াজনিত ট্রামোচার রোগ দেখা দিয়েছে, যা অন্ধত্বের জন্য প্রধানত দায়ী।
এই রোগটা শিশুকালে শুরু হয়। চিকিৎসা করা না হলে এটি অক্ষিনেত্র গঠনে বাধা দেয়। পরে চোখের রেটিনার বিরুদ্ধে কাজ শুরু করে। এটি খুবই ব্যথাদায়ক এবং চিকিৎসার মাধ্যমে দ্রুত সমাধান না করলে অন্ধত্বের দিকে ঠেলে দেয়।
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বর্তমানে বিশ্বের দুই কোটি ১০ লাখ মানুষ ট্রামোচার রোগে আক্রান্ত। এদের মধ্যে ২০ লাখ ২০ হাজার লোক দৃষ্টি প্রতিবন্ধী এবং ১০ লাখ ২০ হাজার লোক পুরোপুরি অন্ধ হয়ে গেছেন।
দক্ষিণ ইথিওপিয়ায় তিন কোটি মানুষের মধ্যে মোট ১২ শতাংশের মধ্যে ট্রামোচা সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। এই রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে অপেক্ষাকৃত আবর্জনাপূর্ণ এলাকায় বসবাসরত মানুষের মধ্যে। সেখানকার লোকজনের স্যানিটেশন সুবিধা নেই বললেই চলে।
চিকিৎসকরা জানান, স্কুল থেকে পাঁচ কিলোমিটার দূরে একটি সার্জারি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। ক্যাম্পের লোকজন গ্রামে গ্রামে গিয়ে খোঁজখবর নিচ্ছেন। এরইমধ্যে দুই লক্ষ মানুষের তারা সার্জারি করেছেন বলেও জানান। সার্জারির মাধ্যমে ১০ মিনিটে এই ব্যাথা দূর করা যায় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

পাতাটি ৩১০৫ বার প্রদর্শিত হয়েছে।