• শিরোনাম

    ঈদের ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ

    | ০৯ জুন ২০১৯ | ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ | পড়া হয়েছে 54 বার

    ঈদের ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ

    ঈদের ছুটি শেষে রাজধানী ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ। এতে ভিড় বাড়ছে বাস ও লঞ্চ টার্মিনাল এবং রেলস্টেশনে। লঞ্চ, বাস ও ট্রেনের যাত্রী সেবা নিয়ে গুরুতর কোনো অভিযোগ করেনি যাত্রীরা। ফিরতি পথে ঝক্কি-ঝামেলা ছাড়াই ঢাকায় পৌঁছাতে পেরে দারুণ খুশি ঢাকা ফেরত মানুষ। দক্ষিণাঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষ রাজধানীতে ফিরছেন, নৌপথে। অপরদিকে নানা কারণে ঈদে গ্রামে যেতে না পারা অনেকে ঢাকা ছাড়ছেন। কমলাপুর রেলস্টেশনে ঢাকাগামী ট্রেনে যেমন ছিল ভিড়, তেমনি ছিল ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনগুলোরও অবস্থা। তিনটি বিশেষ ট্রেনসহ গতকালও চলাচল করেছে ৫৫টি ট্রেন। এরমধ্যে সুন্দরবন এক্সপ্রেস, একতা এক্সপ্রেস, রংপুর এক্সপ্রেস ট্রেন এক থেকে দুইঘন্টা দেরিতে ছেড়েছে। কমলাপুর স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন ম্যানেজার সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ট্রেনে করে ঢাকায় ফেরা এবং ঢাকা থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে যারা যাচ্ছেন তাদের কাছ থেকে কোনো ভোগান্তির অভিযোগ শোনা যায়নি। আসা এবং যাওয়া উভয় যাত্রীদের চাপ প্রায় সমান ছিল। তিনটি ট্রেন ছাড়া বাকি সব ট্রেনই নির্ধারিত সময়মতোই ছেড়ে গেছে। তিনটি ট্রেনের সিডিউল ঠিক রাখা যায়নি। তবে আসার পথে তেমন কোনো ঝামেলা হয়নি। নিরাপদে ঢাকায় ফিরে যাত্রীরা দারুণ খুশি। অপরদিকে গতকালও সায়েদাবাদ, গাবতলী ও মহাখালী বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা গেছে, ঈদের ছুটি শেষে মানুষজন ঢাকায় ফিরছেন। কেউ একা, আবার কেউ পরিবার নিয়ে ফিরছেন।

    পরিবহন সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ঢাকায় ফেরার চাপ এই সপ্তাহ পর্যন্ত থাকবে। তবে এখনো অনেক মানুষ ঢাকা ছেড়ে যাচ্ছেন। এদের অনেকে বাড়ি ফিরছেন আবার অনেকে ঘুরতে বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে যাচ্ছেন। ইউনিক পরিবহনের ফকিরাপুল কাউন্টারে কর্মরত সাইদুর রহমান জানিয়েছেন, অনেকে ঈদের সময় টিকিট পায়নি বলে বাড়ি যেতে পারেনি। এখন হাতে সময় নিয়ে অনেকে বাড়ি যাচ্ছেন। এদের মধ্যে ব্যবসায়ীরা বেশি। আর অনেকে দেশের দর্শনীয় স্থানগুলোতে ঘুরতে ঢাকা ছাড়ছেন। এর মধ্যে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, সিলেট, রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি যাচ্ছেন।

    ঈদে ঘুরতে অনেকে দেশের বাইরেও যাচ্ছেন। এনআর ট্রাভেলসের রাসেল স্কয়ার কাউন্টার কর্মকর্তা ফজলুল বলেন, ঢাকা-কলকাতার টিকিটের প্রচুর চাহিদা এখন। অনেকে একা বা পরিবার নিয়ে ভারতে ঘুরতে যাচ্ছেন। হানিফ পরিবহনের ম্যানেজার মোশারেফ হোসেন বলেন, ঈদ শেষে প্রচুর যাত্রী ঢাকায় ফিরছে। প্রতিটি বাসই পূর্ণ হয়ে আসছে। তিনি আরো বলেন, ট্রাক বন্ধ থাকায় সড়কে কোনো যানজট নেই। ফেরিঘাটে হয়তো একটু সময় লাগছে। তবে আসার পথে এবার যাত্রীদের কোনো ভোগান্তি নেই।

    মহাখালীর এনা পরিবহনের জেনারেল ম্যানেজার সৈয়দ আতিকুল আলম জানান, গতকাল শনিবার সকাল থেকেই প্রচুর যাত্রী এসেছেন। আর রাস্তায় যানজট না থাকায় যাত্রীরা এখন অল্পসময়ে ঢাকায় আসতে পারছেন। বরিশাল থেকে লঞ্চে করে ফিরেছেন স্বপ্না আক্তার ও তার পরিবার। তিনি জানান, ১১ জুন থেকে বাচ্চার স্কুল খুলবে। তাছাড়া রবিবার থেকে অফিস ডিউটি শুরু। এ কারণে কষ্ট হলেও বাবা-মাকে রেখে দ্রুতই ফিরতে হয়েছে। তবে সুন্দরভাবেই ঢাকায় ফিরতে পেরেছেন। কোনো ধরনের ভোগান্তি পোহাতে হয়নি। এদিকে গতকাল সকাল থেকেই ঢাকার রাস্তায় গণপরিবহন ছিল হাতে গোনা। রিকশাও খুব একটা চোখে পড়েনি। বেশিরভাগ দোকানপাটই ছিল বন্ধ। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রিকশা, সিএনজি অটোরিকশা ও বাসের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে উবার-পাঠাওয়ের মতো রাইডশেয়ার প্রতিষ্ঠানগুলোর পরিবহন।

    মন্তব্য করুন

    মন্তব্য

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ০২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০  
  • ফেসবুকে দশদিক