• শিরোনাম

    ভারতীয় স্টেডিয়াম থেকে সরানো হল পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ছবি

    | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ১১:২৫ পূর্বাহ্ণ | পড়া হয়েছে 375 বার

    ভারতীয় স্টেডিয়াম থেকে সরানো হল পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের ছবি

    সিসিআই, মোহালির পর এ বার সেই তালিকায় নাম লিখিয়ে ফেলল হিমাচল প্রদেশ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনও। ধর্মশালার এই ক্রিকেট স্টেডিয়াম থেকে সরিয়ে ফেলা হল ১৩টি পাকিস্তান ক্রিকেটারদের ছবি। সেই তালিকায় ছিলেন ইমরান খান থেকে ওয়াসিম আকরামসহ আরও অনেকে।

    মঙ্গলবার অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘পুলওয়ামায় সিআরপিএফ জওয়ানদের উপর আক্রমণের প্রতিবাদে আমরা স্টেডিয়াম থেকে পাকিস্তানি খেলোয়াড়দের সব ছবি সরিয়ে ফেলার সিদ্ধান্ত নিই।’ এইচপিসিএ স্টেডিয়ামের ম্যানেজার এইচএস মানহাস সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।



    ইমরান খান ও ওয়াসিম আকরাম ছাড়াও ১৩টি ছবির মধ্যে ছিলেন শহীদ আফ্রিদি, শোয়েব আখতার ও জাভেদ মিয়াদাঁদের ছবি।

    পাকিস্তান বনাম বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের সাথে ম্যাচ দিয়ে ২০০৫ সালে উদ্বোধন হয়েছিল ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় হিমাচাল প্রদেশের ধর্মশালার এই এই স্টেডিয়ামের। সেটি একটি প্রস্তুতি ম্যাচ ছিল। হিমাচল প্রদেশের রাজধানী শিমলা থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ধর্মশালায় রয়েছে এই স্টেডিয়াম। অপূর্ব সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশের মধ্যে তার পর থেকে একাধিক আন্তর্জাতিক ম্যাচ হয়েছে।

    কর্তারা জানিয়েছেন, বেশিরভাগ ছবিই ছিল সেই প্রস্তুতি ম্যাচের। ভারতের সঙ্গে সিরিজ খেলতে নামার আগে প্রস্তুতি ম্যাচটি এই স্টেডিয়ামে খেলেছিল পাকিস্তান।

    গত ১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মিরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতি হামলায় নিহত হন ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ান। এই ঘটনার জন্য পাকিস্তানকে দায়ী করেছে ভারত। এ নিয়ে দুই দেশের কূটনৈতিক ও সামরিক উত্তেজনা তুঙ্গে। ভারতের ভাব অনেকটা যুদ্ধংদেহী। আর পাকিস্তান বলছে, তারাও প্রস্তুত। কোন হামলা এলে উপযুক্ত জবাব দেয়া হবে।

    ভিসা পেলেন না পাকিস্তানের খেলোয়াড়রা
    প্রথমে ভিসা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল কিন্তু শেষ পর্যন্ত শুটিং বিশ্বকাপে অংশ নিতে পাকিস্তানের খেলোযাড়দের ভিসা দেয়নি ভারত। ভারতীয় দূতাবাস সবার ভিসা খারিজ করে দিয়েছে। ফলে দিল্লিতে আয়োজিত শুটিং বিশ্বকাপে অংশ নিতে পারছে না পাকিস্তানের খেলোয়াড়রা।

    পাকিস্তান শুটিং ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট রাজি আহমেদ পিটিআইকে বলেন, ‘আমরা বুধবার যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম। মঙ্গলবার থেকেই চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু আমাদের ভিসা দেওয়া হল না। তাই আমাদের যাওয়া হল না।’

    তিনি আরও বলেন, ‘পুলওয়ামা কাণ্ডের পর ভিসা পাওয়া নিয়ে আমার সংশয় ছিল। সেটাই সত্যি হয়ে গেল। প্লেয়ারদের জন্য হতাশাজনক ওরা অলিম্পিকের যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে না।’
    জানা গিয়েছে পাকিস্তান দলে একজন প্রতিযোগী পাকিস্তান নেভি থেকেও রয়েছেন।

    দু’জন শুটার জিএম বশির ও খলিল আহমেদ এবং টিম ম্যানেজারের জন্য ভিসার আবেদন জানানো হয়েছে। যাতে পাকিস্তান থেকে শুটিংয়ে কেউ অলিম্পিকের যোগ্যতা অর্জন করতে পারে। সোমবার ভারতীয় শুটিং ফেডারেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল ভারতীয় দূতাবাস ছাড়পত্র দিয়েছে। ভারতীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ও নাকি সবুজ সঙ্কেত ছিল। কিন্তু হঠাৎই সবটা বদলে গেল।

    উল্লেখ্য এই আসর থেকে ১৬ জন শুটার অলিম্পিক গেমসে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

    মন্তব্য করুন

    মন্তব্য

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    ২৪ জুন ২০১৯

    ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

    ১২ নভেম্বর ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে দশদিক