• শিরোনাম

    ভিসা দেওয়া শুরু করেছে বিভিন্ন দেশ, জটিলতা ফ্লাইটে

    | ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৩:০৫ অপরাহ্ণ | পড়া হয়েছে 189 বার

    ভিসা দেওয়া শুরু করেছে বিভিন্ন দেশ, জটিলতা ফ্লাইটে

    করোনাভাইরাসের কারণে বেশ কয়েক মাস বন্ধ থাকার পর বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশের ভিসা দেওয়া শুরু হয়েছে। তবে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে এখনও নিষেধাজ্ঞা না কাটায় বাড়তি ভাড়ায় বিশেষ ফ্লাইটে যাতায়াত করতে হচ্ছে যাত্রীদের।

    দেশে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে গত ২৪ মার্চ সব আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। পরে ১ জুন থেকে সীমিত পরিসরে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয় সংস্থাটি। সেই থেকে কিছু অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করে বিমান। বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে ১৭টি আন্তর্জাতিক গন্তব্যের মধ্যে লন্ডন, দুবাই, আবুধাবি, চীন, দোহা, কুয়ালালামপুর ও কাতারে সরাসরি যাত্রীবাহী ফ্লাইট চালু রয়েছে। বাকি দেশগুলোতে যাতায়াতে বিশেষ ফ্লাইটের বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে গুণতেও হচ্ছে বাড়তি টাকা।



    জানা গেছে, করোনার পর সবার আগে দেওয়া শুরু হয় ব্রিটিশ ভিসা। ঢাকায় ব্রিটিশ ভিসার আবেদন গুলশানে অবস্থিত ভিএফএস সেন্টারে গত ১৪ জুলাই থেকে আবেদন নেওয়া শুরু হয়েছে। ব্রিটিশ সরকার ৫৭টি দেশের যাত্রীদের ওই দেশে অবতরণের পর ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে থাকা বাধ্যতামূলক করেছে।

    ঢাকায় অবস্থিত ব্রিটিশ দূতাবাস সূত্র জানায়, যাত্রীকে বোর্ডিং পাস নেওয়ার আগে কোথায় কোয়ারেন্টাইনে থাকবে, সেই ঠিকানা উল্লেখ করতে হবে। ব্রিটিশ কর্মকর্তারা দৈবচয়নের মাধ্যমে আকস্মিক যাত্রীর দেওয়া ঠিকানায় পরিদর্শনে গিয়ে কোয়ারেন্টাইনে না পেলে এক হাজার পাউন্ড জরিমানা করবেন। দ্বিতীয় দিন না পেলে দুই হাজার পাউন্ড জরিমানা।

    এদিকে, স্টুডেন্ট ভিসায় পরিবর্তন এনেছে যুক্তরাজ্য। বাংলাদেশসহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাইরের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে আগামী ৫ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে নতুন নিয়ম। ইউরোপীয় এবং ইউরোপের বাইরের দেশ থেকে আসা শিক্ষার্থীদের একই নিয়মে ভিসার আবেদন করার বিধি ঘোষণা দিয়েছে দেশটি। নতুন নিয়মে বলা হয়েছে, অন্য ভিসা ক্যাটাগরির বিদেশিরা স্টুডেন্ট ভিসায় আসার সুযোগ পাবেন। এছাড়া এক বছর ধরে অধ্যায়নরত বিদেশি শিক্ষার্থীদের মেইনটেন্যান্স ফান্ড দেখাতে হবে না।

    ব্রিটিশ ভিসা কার্যক্রম শুরু হওয়ার সপ্তাহ থেকে আরব আমিরাতের ভিসা নবায়ন কাজও শুরু হয়। জানা গেছে, আমিরাতের মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়া ভিসার মেয়াদ বাড়ানো, আইডি কার্ড এবং প্রবেশের পারমিটের জন্য আবেদন করা যাচ্ছে জুলাই থেকেই। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কিছুটা কমার পর থেকে এবার ভিসার ওপর কড়াকড়ি কমিয়ে এনেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। তবে যাদের মার্চ ও এপ্রিল মাসে আরব আমিরাতের রেসিডেনশিয়াল ভিসা ও আমিরাতের আইডি অবৈধ হয়ে গেছে তারা ১২ জুলাই থেকে নবায়নের জন্য আবেদন করতে পারেন। যারা মে মাসে অবৈধ হয়েছেন, তারা ১১ আগস্ট থেকে নবায়নের আবেদন করতে পারছেন।

    বাংলাদেশিদের সবচেয়ে বেশি ভিসা দেয় ভারত। প্রতি বছর প্রায় ১৪ লাখ বাংলাদেশি ভারতের ভিসা পায়। গত মাস থেকে সীমিত পরিসরে ভারতের ভিসা দেওয়া শুরু হয়েছে। আপাতত মেডিক্যাল ভিসা ইস্যু করছে দেশটি। পরিস্থিতি বিবেচনায় বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিমান যোগাযোগ এখনও চালু হয়নি। তবে সড়ক পথ খোলা হয়েছে।

    ঢাকায় অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাস জানায়, মেয়াদোত্তীর্ণ ভিসার ক্ষেত্রে বাংলাদেশিদের জন্য জরিমানা কমিয়েছে ভারত। আগে দেশটিতে অবস্থানকালে বাংলাদেশিদের ভিসার মেয়াদ শেষ হলে বেশি পরিমাণ জরিমানা দিতে হতো। এ জরিমানার ক্ষেত্রে বাংলাদেশি মুসলিম ও অন্য ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে পার্থক্য ছিল। বর্তমান নিয়মে তা অনেক কমানো হয়েছে।

    ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে কয়েক ধরনের ভিসা নবায়নের আবেদন নেওয়া শুরু করেছে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস। যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষার্থী ছিলেন ও পুনরায় লেখাপড়ায় ফিরে যেতে ইচ্ছুক এমন শিক্ষার্থীসহ নির্দিষ্ট কয়েক ধরনের নন-ইমিগ্রান্ট (যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়েছে) ভিসা নবায়নের আবেদন করতে পারছেন।

    নেপালের ইমিগ্রেশন বিভাগ সব ভিসা সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোনো ফি ও ক্ষতিপূরণ ছাড়াই তারা বিদেশিদের ভিসা সার্ভিস দেবে। কিন্তু অন্যদের ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত টুরিস্ট ফি দিয়ে ভিসা নবায়ন করতে হবে।

    বাংলাদেশিদের জন্য সেনজেন ভিসা এ মুহূর্তে বন্ধ রয়েছে। তবে সেনজেনভুক্ত ইউরোপীয় দেশগুলো প্রতি চার সপ্তাহ পরপর করোনাভাইরাস পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছে। বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিন হাজারের ওপরে রয়েছে। এ সংখ্যা ২০০-৩শ’র মধ্যে নেমে এলে সেনজেন ভিসা পুনরায় চালু হবে।

    চীনের ভিসা চালু রয়েছে। তবে চীনে কেউ যেতে চাইলে তার কোভিড-১৯ নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক। মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর মধ্যে সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সরাসরি নিয়মিত ফ্লাইট আপাতত স্থগিত রয়েছে। ২০ সেপ্টেম্বর থেকে ৩টি ফ্লাইট পরিচালনা করার কথা ছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের। তবে দেশটির সরকারের অনুমতি না পাওয়ায় শেষ সময়ে এসে ফ্লাইট স্থগিত করা হয়। ঢাকা থেকে দেশটির ভিসা দেওয়া আপাতত বন্ধ রয়েছে।

    সামগ্রিক বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন রাইজিংবিডিকে বলেন, করোনা কবে নাগাদ নিয়ন্ত্রণে আসবে কোনো দেশই কিন্তু বলতে পারছে না। তাই ভিসা প্রক্রিয়ার বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে কিছু বলা সম্ভব নয়। করোনার শুরুর দিকেই সব দেশের ভিসা প্রক্রিয়া হয়ে যায়। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বিভিন্ন দেশ কার্যক্রম শুরু করছে। নতুন করে কিছু দেশের সঙ্গে সরকারের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হচ্ছে। তথ্যপ্রযুক্তিসহ দক্ষতামূলক বিভিন্ন খাতে ভিসা প্রক্রিয়া সহজীকরণের জন্যও চেষ্টা করা হচ্ছে।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০

    ০৯ এপ্রিল ২০২০

    ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে দশদিক